সারীপুত্র মহাস্থবিরের শেষ জন্মের কাহিনী (৫)

Smiley face

সারীপুত্র মহাস্থবিরের শেষ জন্মের কাহিনী (৫)

শ্রাবক পারমী জ্ঞানে পরিপূর্ণতা লাভের পর তিনি কী উক্তি করিয়াছিলেন?

ইলা মুৎসুদ্দী

 b10

পড়ুন, জানুন এবং ধর্ম ধারণে সচেষ্ট হোন। মহাজ্ঞানী ধর্ম্মসেনাপতি সারীপুত্র বুদ্ধ ধর্ম্মের সারবত্তা উপলব্ধি করিতে পারিয়া, দুঃখ প্রাপ্ত প্রাণীদের কল্যাণ মানসে বজ্রকণ্ঠে বলিয়াছেন- অহো! আমি দেব-মানবের শাস্তা ভগবান অনোমদর্শী বুদ্ধকে শ্রদ্ধার সহিত পূজা-সৎকার করিয়া যেই অমৃতময় পুণ্য-সম্পদ অর্জ্জন করিয়াছি, তাহা বাস্তবিকই বর্ণনাতীত। সেই কুশল কর্ম্মের পবিত্র পুণ্য-সম্ভারে আমি সর্ব্বদাই প্রফুল্লমনে কাল ক্ষেপন করিয়া আসিতেছি। সেই অমিত পুণ্য প্রভাবে আমি সর্ব্বত্র, সর্ব্ব-বিষয়ে পারদর্শিতা লাভ করিতে সমর্থ হইয়াছি। সেই অপরিমিত পুণ্য ফলে আমি ইহ জীবনেও অনন্ত সুখের ভাগী হইয়াছি। ধনুকে যোজিত দ্রুতগামী তীরের ন্যায় আমিও অচিরে সংসারে ক্লেশ ধ্বংশ করিয়া শান্তিময় অরহৎ ফল লাভ করিতে সমর্থ হইয়াছি। আমি জন্ম-জরাদি বিহীন শান্তিময় নির্ব্বাণ সুখের অনুসন্ধান করিতে করিতে এই সংসারে বহুকাল পরিভ্রমণ করিয়াছি, অনেক তীর্থীয় পরবাদীর নিকট যাইয়া দীক্ষিত হওতঃ তাঁহাদের জ্ঞানের পরিচয়ও সম্যকরূপে পাইয়াছি। দুরারোগ্য ব্যাধিগ্রস্ত ব্যক্তি যেমন, তাহার রোগের অনুরূপ ঔষধ অন্বেষণ করিতে করিতে আপ্রাণ কষ্ট স্বীকার করিয়া থাকে এবং সেই অসহ্য ব্যাধির হাত হইতে মুক্তি পাইবার জন্য তাহার সমস্ত বিত্ত-সম্পত্তি নিঃশেষ করে, আমিও তেমন দুঃসহ ক্লেশ-ব্যাধি উপশম করিয়া অমৃতপদ নির্ব্বাণ লাভের জন্য ক্রমাগত পাঁচশত বার ঋষি-প্রব্রজ্যা গ্রহণ করিয়াছিলাম। আমার শিরঃ জটাজুট মণ্ডিত ছিল। আমি অজিনচর্ম্ম পরিধান করিতাম, তথায় ধ্যান লাভ করিয়া ব্রহ্মলোকগামী হইয়াছিলাম।

কিন্তু এতদূর পরিভ্রমণ করিয়া আমি যাহা বুঝিয়াছি তাহা আমার বিশুদ্ধ অভিজ্ঞতা হইতে বলিতেছি, যদি পরম বিশুদ্ধি লাভ করিতে হয়, তবে এই স্বয়ম্ভূ বুদ্ধের শাসন ছাড়া অন্যত্র শুদ্ধি লাভের উপায় দেখা যায় না। জগতের মহা মহা জ্ঞানী ব্যক্তিগণ বুদ্ধ শাসনেই পরম বিশুদ্ধি লাভ করিয়া থাকেন। এই পবিত্র জিন-শাসন সকলেরই হিত সাধন করিবে, এ বিষয় আমি স্বয়ং প্রত্যক্ষ করিয়া প্রকাশ করিতেছি। আমি যেই সত্য দুঃখিত প্রাণীদের হিতের জন্য প্রকাশ করিতেছি, তাহা জনশ্রতি বা কিংবদন্তী নহে। আমি চরম শান্তি নির্ব্বাণ মার্গের অনুসন্ধান করিতে করিতে কতই কুতীর্থে ভ্রমণ করিয়াছি, কিন্তু কোথাও নির্ব্বাণ-সার দেখিতে পাই নাই। কোন সার অন্বেষী পুরুষ যদি বৃক্ষসার অন্বেষণ করে, তাহা হইলে তাহাকে সারবান বৃক্ষেরই সন্ধান করিতে হইবে। কদলি-বৃক্ষ ফালিয়া দেখিলে সার পাওয়া যাইবে না। কারণ তাহা আসার নিঃসার এবং সার শূন্য। কদলি বৃক্ষ যেমন অসার সেরূপ নানা মতবাদী তীর্থকগণও নির্ব্বাণ সারশূন্য। আমি অতৃপ্ত আগ্রহ লইয়া কতই না কুতীর্থে পরিভ্রমণ করিয়াছি। কিন্তু পরম হিতৈষী আচার্য্য অশ্বজিৎ স্থবিরের দর্শনে আমার আকুল আগ্রহ পরিতৃপ্ত হইয়াছে ও সম্যক সংকল্প পরিপূর্ণ হইয়াছে। সাগরের গভীর জল হইতে তরঙ্গ উঠিলেও তাহা যেমন মরুভূমি অতিক্রম করিয়া যাইতে পারে না, বরং তীরে আঘাত প্রাপ্ত হওতঃ বিলীন হইয়া যায়, সেইরূপ নানা মতবাদী তীর্থকগণও ভগবানের নব লোকোত্তর ধর্ম্ম অতিক্রম করিতে পারে না। নিজের মতবাদ সম্বন্ধে প্রতিবাদ করিবার জন্য চক্ষুষ্মান ভগবান- সমীপে উপস্থিত হইলেও তাহাদের চিরকাল পোষিত দর্প চুর্ণ বিচুর্ণ হইয়া যায়। পুরুষ সিংহ বুদ্ধের গর্জ্জনে এই মহাপৃথিবী কম্পিত হয়। তাঁহার ধর্ম্মদেশনা রূপ গর্জ্জন শুনিয়া যাঁহারা পূরিত পারমী, তাঁহারা চতুরার্য্য সত্য বোধগম্য করিয়া থাকেন, আর মারেরাও সন্ত্রস্থ হইয়া থাকে। পশুরাজ সিংহকে দেখিয়া অন্যান্য পশুগণ যেমন ভীত হয়, শ্যেন পক্ষীকে দেখিলে অপরাপর দুর্ব্বল পক্ষীরা যেমন দিশে হারা হয়, সেরূপ মহামুনি বুদ্ধের সিংহনাদ শুনিয়া তীর্থীয়গণও ভীত সন্ত্রস্থ হইয়া থাকে। জগতে অনেক গণাচার্য্য স্বীয় স্বীয় শিষ্য মণ্ডলীকে শাসন অনুশাসন করিয়া শাস্তা নামে পরিচিত হইয়াছেন। কিন্তু পরিষদের মধ্যে তাঁহারা যেই ধর্ম্ম দেশনা করেন, তাহা পরস্পরাগত অর্থাৎ শুনাশুনি ধর্ম্ম। মহাবীর বুদ্ধ প্রাণীদের হিত কামনা করিয়া যেই ধর্ম্মদেশনা করিয়াছেন, তাহা তেমন নহে, তিনি অনাদি অনন্তকাল পারমী সম্ভার পূর্ণ করতঃ আর্য্য সত্য সমূহ জ্ঞাত হইয়াছেন। কাজেই তিনি স্বয়ম্ভূ জ্ঞান-লদ্ধ লোকোত্তর ধর্ম্ম দেশনা করিয়া থাকেন। সেই ধর্ম্মের বিমুক্তি রস আস্বাদন করিতে না পারিলে, বাসনা-দগ্ধ অন্তরে শান্তি পাওয়া যায় না।

সূত্র-সারিপুত্র চরিত

 

Facebook Comments

বৌদ্ধদের আরো তথ্য ও সংবাদ পেতে হলে আমাদের ফেসবুক ফ্যান পেইজে লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন।: www.facebook.com/buddhisttimes

দি বুড্ডিস্ট টাইমস.কম একটি স্বতন্ত্র ইন্টারনেট মিডিয়া। এখানে বৌদ্ধদের দৈনন্দিন জীবনের বিষয়গুলোকেই তুলে আনার চেষ্টা করা হয়। পাশাপাশি যে কেহ লিখতে পারেন দি বুড্ডিস্ট টাইমস এ। দি বুড্ডিস্ট টাইমস এর সাথে লেখ-লেখিতে যুক্ত হতে চাইলে ব্যবহার বিধি ও নীতিমালা পড়ুন অথবা নিবন্ধন করুন
এখানে।

Short URL: http://thebuddhisttimes.com/?p=3139

Posted by on Dec 2 2016. Filed under বৌদ্ধধর্ম. You can follow any responses to this entry through the RSS 2.0. You can leave a response or trackback to this entry

You must be logged in to post a comment Login

Smiley face

সর্বশেষ টাইমস

Recent Posts: NivvanaTV covering Buddhist and Buddhist community in World, with weekly news, views, entertainment, and programs for all age.

রাঙ্গামাটিতে পাহাড় ধ্বসে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান

রাঙ্গামাটিতে পাহাড় ধ্বসে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান

সুপ্রিয় চাকমা শুভ,রাঙামাটি সাম্প্রতিক পাহাড় ধস ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ রাঙ্গামাটির বিলাইছড়ি উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ৬০টি পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছে বিদেশী দাতা সংস্থা দি স্যালভেশন আর্মী বাংলাদেশ। শুক্রবার (১৯ জানুয়ারী) সকালে বিলাইছড়ি উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য রেমলিয়ানা পাংখোয়া প্রধান অতিথি হিসাবে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের মাঝে আর্থিক সহায়তা বিতরণ করেন। […]

Photo Gallery

Top Downloads

Icon

The Buddhist Times Android apps 46.21 KB 54 downloads

...
Icon

অভিধর্ম্মার্থ সংগ্রহ 1.65 MB 1 downloads

গ্রন্থের নামানুসারে ইহা একটি অর্থ-সংগ্রহ...
Developed by Dhammabiriya
error: অনুগ্রহ করে কপি/পেস্ট মনোভাব পরিহার করি নিজে লেখার যোগ্যতা অর্জন করুন।